Fate of those who denied! 26–04–15

৭৯ খ্রিস্টাব্দ, আগস্ট মাস। ইটালির ক্যাম্পানিয়া অঞ্চল। 
শহরটা ছিল আজকের দিনের নেইপলস-এর কাছাকছি। ষষ্ঠ এবং সপ্তম শতাব্দীর মাঝামাঝি সূচনা এই চোখধাধানো নাগরিক সভ্যতাটার। একাধারে ব্যবসা, সংস্কৃতি আর বিনোদনের কেন্দ্র। অ্যাম্পফিথিয়েটার, জিমনেইসিয়াম [আদি অর্থ দ্রষ্টব্য], বন্দর আর তৎকালীন প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের শহর। 
.
.
তবে এসব ছাপিয়ে উঠে আসে আরেকটা পরিচয়। প্রায় ২০,০০০ অধিবাসীর এই শহরটাতে সময়ের গতি যেন অন্য সব জায়গার চাইতে একটু বেশীই। সব সময় আবেগ, উত্তেজনা আর রোমাঞ্চের উচু তাঁরে বাধা যেন এই জায়গাটা। তারুণ্যের, আনন্দের আর যৌবনের বাধভাঙ্গা উল্লাসের এক কেন্দ্র। নিজেকে হারিয়ে যাওয়ার পর নিজেকে খুজে পেয়ে আবার হারিয়ে ফেলার জন্যই যেন এই শহরটা তৈরি। এই শহর মুক্তমন আর সস্তা শরীরের। এই শহর পতিতাদের, এই শহর পতিতদের। এই শহর সমকামের, শিশুকামের, অযাচারের আর অবাধ যৌনাচারের। মদ, মাংশ আর মাৎসর্যের যতোসব আনন্দ আপনি চিন্তা করতে পারবেন আর যা কিছু চিন্তা করতে পারবেন না, সেই সবকিছু খুজে পাবার শহর হল এই পম্পেই। 
.

শুধু চাঁদের বুকে কালিমার মতো একটা উপদ্রবের মতো হল দিগন্ত আড়াল করে থাকা ভিসুভিয়াস পর্বত। প্রায় ১৫ বছর আগে এই ভিসুভিয়াসের উৎপাতেই নেইপলস উপসাগরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল। ভূমিকম্পের কারণে পম্পেইর ও অনেক ক্ষতি হয়েছিল। তবে পম্পেই আর পম্পেই এর চেতনাকে কোন ভূমিকম্প হারাতে পারবে না। কই কতো ক্ষয়ক্ষতি হওয়া সত্ত্বেও পম্পেই কি ঘুরে দাঁড়ায় নি? আবার কি গড়ে তোলেনি পুরনোর ধ্বংসাবশেষ থেকে নতুন করে? বরং আগের চেয়েও আর আকর্ষণীয় হয়ে, আরো মনোমুগ্ধকর রূপে সেজে পম্পেই উঠে দাঁড়িয়েছে। মেতে উঠেছে আনন্দ আর উচ্ছাসে। গড়ে তুলেছে প্রতিটি গলিতে গলিতে স্বাধীন নারী আর সুশীল কামুকের প্রিয় সেই উপাসনালয়, মুক্তমনা পুরুষ আর মুক্ত শরীরের আলোকিত গণিকাদের পবিত্র আশ্রয়। 
.
.
আর শুধু এখানেই থেমে থাকা কেন- সত্যিকারের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী পম্পেই স্বাধীনতাকে নারীদেহে আটকে রাখে নি। কেন পুরুষের জন্য পুরুষ, নারীর জন্য নারী, নারী ও পুরুষের জন্য শিশু আর পিতা ও মাতার দেহের জন্য সন্তানের দেহও ক্ষনিকের আনন্দের জন্য উন্মুক্ত হবে না? পম্পেইর স্বাধীনতা, মুক্তদেহ আর মুক্তমনের চেতনায় কোন দ্বিমুখীতা নেই। সব উন্মুক্ত। সব জায়েজ। আনন্দ, বিনোদন আর উত্তেজনা এই শহরের দেবতাবৃন্দ। 
.
.
পম্পেই ঘুমায় না, পম্পেই জেগে থাকে। পম্পেই ভয় পায় না। পম্পেই আগামী নিয়ে দুশ্চিন্তা করে না, বর্তমান নিয়ে মেতে থাকে। কই গত কয়েক মাস ধরেই তো ভিসুভিয়াস কি কি জানি গাইগুই করছে — হঠাৎ হঠাৎ মধ্যরাতে গর্জে উঠে অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে, মাঝে মধ্যেই হালকা ভূমিকম্প হচ্ছে — পম্পেই কি তাতে ভয় পেয়েছে? কেন গত প্রায় এক সপ্তাহ ধরে তো প্রায় পুরো দিনই থেমে থেমে ভূমিকম্প হল, গত চার দিন ধরে ভিসুভিয়াসের উপরটা ধোঁয়া দিয়েই ঢেকে আছে বলা যায়। পম্পেই কি ভয় পেয়েছে? ভিসুভিয়াস কি ভেবেছে পম্পেই ভয় পাবে? পম্পেই চিন্তা করবে? এক পর্বতের হম্বিতম্বিতে পম্পেই থামবে?

.
.

হাহ! ভিসুভিয়াসের গর্জন চাপা পরে গেছে মদ আর মাংশের চিৎকারে। পম্পেই আগ্নেয়গিরির ধোঁয়া ছাপিয়ে উঠেছে মুক্তমন আর সস্তা শরীরের আনন্দে। কে হারাবে পম্পেই কে? এই প্রযুক্তিকে? এই উন্নতিকে? এই নিশ্চিন্ত বিশ্বাসকে? পম্পেই কোনদিন হারবে না। হার মানবে না…

তাই না? 
 — — — — -

প্রচন্ড শক্তিতে প্রতি সেকেন্ডে পনের লক্ষ টন গলিত পাথর, গুড়ো হয়ে যাওয়া আকরিক আর তরল আগুন ছুড়ে দেয়া হয়েছিল মাটী থেকে প্রায় ২১ মাইল উচুতে।নিঃসরিত হয়েছিল হিরোশিমায় ফেলা পারমাণবিক বোমার চাইতে এক লক্ষ গুন বেশী তাপ শক্তি। প্রথম বিস্ফোরণের সময় তাপমাত্রা পৌঁছে গিয়েছিল ৩০০ ডিগ্রী সেলসিয়াসে যা এক সেকেন্ডের ভগ্নাংশের মধ্যে কেড়ে নিয়েছিল হাজারো মানুষের জীবন। আনন্দ-উচ্ছাসে মত্ত হাজারো মানুষ শুধু প্রচন্ড তাপের কারণে সৃষ্ট হওয়া থার্মাল শকে, তীব্র খিচুনিতে, অনিয়ন্ত্রিতভাবে শরীর বেঁকে যাবার মত সময়টুকু পেয়েছিল। সেকেন্ডের ভগ্নাংশের মধ্যেই প্রকট মৃত্যুযন্ত্রণা অনুভব করার মতো সময়টুকু পেয়েছিল। তারপর আলোকিত গণিকা আর মুক্তমনা সুশীলতার কামুকরা আর তাদের শরীরগুলো চাপা পরে গিয়েছিল ২১ ফিট গভীর আগ্নেয় ছাইয়ের নিচে। 
.
.
আল্লাহু আকবার !
“তিনিই জীবিত করেন এবং মৃত্যু দেন। যখন তিনি কোন কাজের আদেশ করেন, তখন একথাই বলেন, হয়ে যাও”-তা হয়ে যায়।“ [গাফির, ৪৮]

“তিনিই নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের উদ্ভাবক। যখন তিনি কোন কার্য সম্পাদনের সিন্ধান্ত নেন, তখন সেটিকে শুধু একথাই বলেন, “হয়ে যাও” আর তৎক্ষণাৎ তা হয়ে যায়। [আল বাকা’রা ১১৭]
.
.
 — — — —

কওমে লূতকে মানা করা হয়েছিল, সাবধান করা হয়েছিল, কিন্তু তারা তাচ্ছিল্য করে বলেছিল-

“তাঁর[লূত আলাইহিস সালাতু ওয়াস সালাম-এর] সম্প্রদায় এ ছাড়া কোন উত্তর দিল না যে, বের করে দাও এদেরকে শহর থেকে। এরা খুব পবিত্র থাকতে চায়!” [আল আরাফ- ৮২]

হুদ আলাইহিস সালাতু ওয়াস সালাম ‘আদ জাতিকে সতর্ক করেছিলেন কিন্তু তারা উদ্ধত হয়ে বলেছিল-

“… তারা (‘আদ) পৃথিবীতে অযথা অহংকার করল এবং বলল, আমাদের অপেক্ষা অধিক শক্তিধর কে?”[ফুসিলাত ১৫]

আল্লাহ-র আযাবের আগমনের নিদর্শন দেখেও তারা নিশ্চিন্ত হয়ে বলেছিল -

“(অতঃপর) তারা যখন শাস্তিকে মেঘরূপে তাদের উপত্যকা অভিমুখী দেখল, তখন বলল, এ তো মেঘ, আমাদেরকে বৃষ্টি দেবে। বরং এটা সেই বস্তু, যা তোমরা তাড়াতাড়ি চেয়েছিলে। এটা বায়ু এতে রয়েছে মর্মন্তুদ শাস্তি।[আল আহকাফ, ২৪-২৫]”
.
.
সা’মূদকে তিন দিন সময়ের কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন সালিহ আলাইহিস সালাতু ওয়াসসালাম, কিন্তু তারা তাঁকে এবং বিশ্বাসীদেরকে বিদ্রূপ করেছিল। তৃতীয় দিনে রাস্তায় নেমে এসেছিল উৎসব করতে, মেতে ঊঠেছিল নাচে গানে উচ্ছ্বাসে, আর বাড়ি ফিরতে ফিরতে নিজেরা বলাবলি করছিল কোথায় সেই শাস্তি? কোথায় গেল সালিহ [আঃ] আর তাঁর রাব্ব-এর প্রতিশ্রুতি ! আর তারপর সালিহ [আঃ]-এর রাব্ব এবং তাঁদের রাব্ব, এবং সমগ্র সৃষ্টির রাব্ব — মালিকুল মূলক’ আল্লাহ্‌ আযযাওয়াজাল তাদের প্রতি প্রেরণ করেছিলেন সেই জিনিষ যার ব্যাপারে তারা প্রশ্ন করেছিল। সেই প্রতিশ্রুতি যা নিয়ে তারা সন্দেহ পোষণ করেছিল। সেই শাস্তি যা তারা সহস্র সতর্কবাণীর পরও উপেক্ষা করেছিল — 
.
.
“আর ভয়ঙ্কর গর্জন পাপিষ্ঠদের পাকড়াও করল, ফলে ভোর হতে না হতেই তারা নিজ নিজ গৃহসমূহে উপুর হয়ে পড়ে রইল।যেন তাঁরা কোনদিনই সেখানে ছিল না। জেনে রাখ, নিশ্চয় সামুদ জাতি তাদের পালনকর্তার প্রতি অস্বীকার করেছিল…[হুদ ৬৭-৬৮]
.
.

আর রাহমাতুললীল আলামীন মুহাম্মাদ ﷺ তাঁর উম্মাহকে জানিয়েছিলেন তাঁর ﷺ রাব্ব যা নাযিল করেছিলেন তাঁর প্রতি। তিনি ﷺ জানিয়েছিলেন কি ঘটেছিল পূর্ববর্তী জাতিদের। ঘন মেঘ দেখে তিনি ﷺ আল্লাহ-র আযাবের ভয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়তেন, কারণ পূর্ববর্তী জাতির প্রতি আল্লাহ্‌ আযযাওয়াজাল মেঘের মাধ্যমে আযাব প্রেরণ করেছিলেন। তিনি সতর্ক করেছিলেন, তিনি জানিয়েছিলেন কি ঘটবে যখন পূর্ববর্তী এই জাতিদের অনুসরণ শুরু করবে। আর আজ উম্মাতে মুহাম্মাদী নামধারীরা আল্লাহ্‌ আযযা ওয়াজালের নিদর্শন দেখেও নির্বিকার থাকে। ফেইসবুকে চেক ইন মারে আর সেলফি আপলোড করে। আল্লাহ-র আযাবের ব্যাপারে গাফেল হয়ে তাঁর নিদর্শন নিয়ে রসিকতা করে।
.
.
“(৯৭) এখনও কি এই জনপদের অধিবাসীরা এ ব্যাপারে নিশ্চিন্ত যে, আমার আযাব তাদের উপর রাতের বেলায় এসে পড়বে অথচ তখন তারা থাকবে ঘুমে অচেতন। 
(৯৮) আর এই জনপদের অধিবাসীরা কি নিশ্চিন্ত হয়ে পড়েছে যে, তাদের উপর আমার আযাব দিনের বেলাতে এসে পড়বে অথচ তারা তখন থাকবে খেলা-ধুলায় মত্ত।
(৯৯) তারা কি আল্লাহর পাকড়াওয়ের ব্যাপারে নিশ্চিন্ত হয়ে গেছে? বস্তুতঃ আল্লাহর পাকড়াও থেকে তারাই নিশ্চিন্ত হতে পারে, যাদের ধ্বংস ঘনিয়ে আসে।”[সুরা আল ‘আরাফ]
.
.
 — — -

মাঝে মাঝে চোখ বন্ধ করে আর রাহমান — এর রাহমাতের ব্যপ্তি চিন্তা করার ব্যর্থ চেস্টা করি। মাতৃগর্ভ থেকে কবর পর্যন্ত যতো নিয়্যামাত ভোগ করি সেগুলো না, আমাকে সব চাইতে অবাক করে এই সত্যটা যে এই সেলফি তোলা, রসিকতা করা, চেক-ইন মারা, যিনা থেকে শুরু করে সমকামীতাকে মেনে নেওয়া, আল্লাহ-র কালামকে শ্রাগ করে ঝেড়ে ফেলে দেয়ার চেস্টা করা, ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির নামে পৌত্তলিকতায় মেতে ওঠা, “চেতনা” আর প্রজন্মের” এই পশুর চাইতেও নিকৃষ্ট বান্দাগুলোর জন্যও আল্লাহ্‌ আর রাযযাক, রিযক দেন। গাফুরুর রাহীম ক্ষমা করেন।

সাদূম, গোমোরাহ, পম্পেই এর অধিবাসীরা ভুলে ছিল। ‘আদ, সামূদ উপহাস করেছিল। এই ভুলে থাকা এই উপহাস, হাসিঠাট্টা, অন্ধ বিশ্বাস যে সাজানো গোছানো চেনা জীবনটা এক মুহূর্তের মধ্যে উল্টে যাবে না — আল্লাহ-র আযাব, আল্লাহ-র পাকড়াও এর ব্যাপারে এই নিশ্চিন্ত হয়ে যাওয়া কারো কোন কাজে আসে নি। আমাদের ও আসবে না।

“তারা কি আল্লাহর পাকড়াওয়ের ব্যাপারে নিশ্চিন্ত হয়ে গেছে? বস্তুতঃ আল্লাহর পাকড়াও থেকে তারাই নিশ্চিন্ত হতে পারে, যাদের ধ্বংস ঘনিয়ে আসে।”
.
.
“তারা জোর শপথ করে বলত, তাদের কাছে কোন সতর্ককারী আগমন করলে তারা অন্য যে কোন সম্প্রদায় অপেক্ষা অধিকতর সৎপথে চলবে। অতঃপর যখন তাদের কাছে সতর্ককারী আগমন করল, তখন ঔদ্ধত্যের কারণে এবং কুচক্রের কারণে তাদের ঘৃণাই কেবল বেড়ে গেল।পৃথিবীতে কুচক্র কুচক্রীদেরকেই ঘিরে ধরে। তবে তারা [কি] পূর্ববর্তীদের দশা ছাড়া আর কোন পরিণাম আশা করছে? অতএব আপনি আল্লাহর বিধানে পরিবর্তন পাবেন না এবং আল্লাহর রীতি-নীতিতে কোন রকম বিচ্যুতিও পাবেন না। [ফাতির ৪২-৪৩]