Cognitive Dissonance

FreeTown মুভি দেখতে গিয়ে psychologyর একটা নতুন টার্ম শিখলাম।

Cognitive dissonance.

আক্ষরিক বাংলায় সবচাইতে কাছাকাছি অর্থ হতে পারে “স্ববিরোধী চিন্তা”, “চিন্তার দ্বৈততা” বা এরকম কিছু।

কোনো একটা সময়ে কোনো একটা নির্দিষ্ট বিষয়ে আপনার মনে যদি দুইরকমের চিন্তা কাজ করে সেটাকে বলা যেতে পারে Cognitive dissonance।

যেমন আপনি হয়তো কোনো একটা মানুষকে খুব ভালো জানেন, অথচ সামনাসামনি তাকে কোনো একটা খারাপ কাজ করতে দেখলেন। এখন আপনি ঠিক তার সম্পর্কে আপনার ধারণার সাথে এটা মেলাতে পারছেন না আবার যেহেতু নিজ চোখে দেখেছেন অবিশ্বাস করারও সুযোগ নেই। এই অবস্থায় আপনি যেই দোটানায় পড়েছেন সেই অবস্থাটাকেই বলা হয় “Cognitive Dissonance”। আবার একইরকম ভাবে ছোটোবেলা থেকে জেনে আসা কোনো বিষয় সম্পর্কে কারো কাছ থেকে বা অন্য কোনো উৎস থেকে ভিন্ন কিছু জানলে সেটা মানতে আমাদের মন সায় দেয় না। এটা cognitive dissonance এর কারনেই হয়। এরকম সময়ে আমরা এই ভিন্নধর্মী চিন্তার জন্য একটা মানসিক চাপ অনুভব করি, মনের ভেতর খচখচ করতে থাকে। আপনি কতোটা শক্তভাবে আপনার এতদিনকার বিশ্বাসটা আঁকড়ে ছিলেন বা নতুন চিন্তাটা আগের চিন্তার সাথে কতখানি সাংঘর্ষিক তার উপর নির্ভর করবে আপনার মানসিক চাপটা কতটুকু হবে।

এরকম পরিস্থিতিতে পড়লে আমরা যেই সিদ্ধান্তই নেই না কেন সেটা মূলত এই cognitive dissonance টা দূর করার জন্যই। যেমনঃ কোনো একজন স্বাস্থ্যবান মানুষের সামনে কোনো ওজনবর্ধক খাবার এলে সে এই mental dilemma তে পড়ে। সে জানে এই খাবার খেলে তার ওজন আরো বাড়বে। আবার খেতেও ইচ্ছা করে। তখন সে এটা থেকে পরিত্রানের জন্য কি করে?

- “খেলাম না এই খাবার” (নতুন তথ্যটাকে গ্রহন করে )

- “মাঝে মাঝে একটু আধটূ এসব খেলে কিছু হয় না” (নতুন তথ্যটার বিরুদ্ধে বিভিন্নরকম যুক্তিতর্ক দাঁড় করিয়ে আগের ধারনাতেই অটল থাকে)

- “যেটুকু খাচ্ছি ব্যায়াম করে সেটা পুষিয়ে নিবো” (নতুন তথ্যটাকে পুরোপুরি ফেলেও দেয় না আবার গ্রহনও করে না। বরঞ্চ কিছুটা পরিবর্তিত করে নিজের মত করে ব্যবহার করে)

- “কে কইছে এই খাবার খাইলে ওজন বাড়ে? বাজে কথা যত!” (নতুন তথ্যটাকে পুরোপুরি ইগ্নোর করে)

শুধু এরকম ক্ষেত্রেই না আমাদের লাইফে আমরা প্রায় প্রতিনিয়তই এই রকম বিভিন্ন পরিস্থিতির সম্মুখীন হই যেটা আসলে cognitive dissonance এ ফেলে দেয় আমাদেরকে, realityর সাথে আমাদের ধারণা মেলে না। ছোটোবেলায় পড়া ঈশপের ‘আঙ্গুর ফল টক’ গল্পের কথা মনে আছে? সেখানেও কিন্তু শেয়ালের এই ‘cognitive dissonance’ এর কথাই আসলে বলা আছে।

যাই হোক, এই বিষয়ে wikipedia তে খুব সুন্দর (বিশাল, পুরোটা পড়ার ধৈর্য হয় নাই আমার) আর্টিকেল আছে। কারো আগ্রহ থাকলে পড়ে নিতে পারেন।