ইংরেজি শেখা, ইংরেজি লেখা

ক্যাপশনঃকনফিউড, ছবির সোর্স

ধরুন আপনি FreeCodeCamp এ আছেন, সব ইংরেজিতে লেখা। বা ধরুন আপনি ইংরেজিতে একটা টিউটোরিয়াল দেখতে গেলে বোরিং ফিল করেন, ইংরেজিতে লেখতে গেলে বাংলিশ ভাষায় লেখা লাগে, ইংরেজির প্রতি আপনার চরম অনীহা। কিন্তু তারপরও আপনি চান যে আপনি যেন ওই টিউটোরিয়ালগুলো বুঝতে পারেন। ইংরেজি আপনার শেখার পথে বাধা হয়ে আছে বলেই এই ছোট লেখার আয়োজন।

ইংরেজি হলো আন্তর্জাতিক ভাষা। অনেক পরিসংখ্যানেই এসেছে পৃথিবীতে অর্ধেক মানুষই ইংরেজিতে কথা বলতে পারে। ইংরেজি জানতে পারলে আপনি এই অর্ধেক মানুষের সাথে কথা চালিয়ে যেতে পারবেন সহজেই। আমরা স্কুল কলেজে ১০ বছরের বেশি সময় ইংরেজি শিখলেও ইংরেজির একটা বিশাল ভয় আমাদের মধ্যে কাজ করে, ইংরেজির নাম শুনলেও আমরা ভয় পাই। কিন্তু দেখা যাবে আমরা সহজেই হিন্দী ভাষা বুঝতে পারতেসি কারণ সেটা অনেকাংশেই বাংলার সাথে মিলে যায়। আবার অনেকাংশেই সারাক্ষণ হিন্দী ফিল্ম দেখতে দেখতে আমরা হিন্দীর মধ্যে ডুবে যাই। তবে ইংরেজির বেলায় সেটা হয় না।

ইংরেজি কেন প্রয়োজন সে নিয়ে আবার বলার প্রয়োজন নেই, ইংরেজিতে নিজের দক্ষতা বাড়াতে কি করা যায়, সে নিয়ে নিজের ক্ষুদ্র মস্তিস্ক থেকে কিছু লিখছি। এখানে বলে রাখা উচিৎ, আমি ইংরেজিতে মোটেও এতটা দক্ষ না, কিন্তু যা শিখছি, তা সবার সাথে শেয়ার করতে কোন আপত্তি নেই। এখানে একটা বিষয় দেখুন, আমি শেয়ার করার কথা বলার সাথে সাথে আপনি বুঝে ফেলেছেন আমি কি বোঝাতে চেয়েছি। আপনাকে শেয়ার শব্দটির বাংলা করতে হয়নি। এটাই যেকোন ভাষা শেখার একটা সহজ উপায়।


কেন আমরা ইংরেজি বলতে পারি না?

শিক্ষাব্যবস্থার সমস্যা

আপনি চিন্তা করুন, আপনি এত বছর স্কুলে ইংরেজি পড়েছেন। কিন্তু এরপরও ইংরেজি পারেন না, কারণ আপনি ইংরেজিতে কিছু ভুল হলেই পরীক্ষায় লাল কালিতে আপনার লেখাটি কেটে দেয়া হয়েছে। তাই পাস করার জন্য আপনি শিখেছেন, আপনার নিজের শেখার জন্য কমই শেখা হয়েছে। এখন ত দেখা যায় যে বাচ্চারা একটা শব্দের সঠিক অর্থ লেখলেও সেটা ওই টিচারের দেয়া অর্থের সাথে না মিললেও ওই টিচার সেটা কেটে দেয়। বাচ্চারা শিখবে কিভাবে? এইরকম শিক্ষাব্যবস্থার সমস্যার জন্যই আপনি ইংরেজিতে কিছু করতে পারছেন না।

বাচ্চাদের মত শেখা

আপনি ইংরেজি শেখার জন্য হয়তো ৩০ দিনে ইংরেজি শেখার একটা বই কিনলেন, দুই দিন পড়েই রেখে দিলেন। কারণ একা একা কতই বা শিখবেন। কিন্তু দেখুন, আপনি যখন ছোট ছিলেন, তখন আপনি কিছুই পারতেন না। তাও কি আপনি এখন বাংলায় কথা ভাবতে, শুনতে, বলতে, লিখতে এবং পড়তে পারেন না? আপনার স্বপ্নগুলোও বাংলায় হয়। একটা বাচ্চা ছোটকালে যেভাবে কথা শেখে, সেভাবে বাকি সবকিছু শিখলে ভোলার অবস্থা হবে না।

খেলার মত শেখা

যতক্ষণ ইংরেজি শেখাকে একটা পরীক্ষা বলে মনে করবেন, ততক্ষণ হয়তো আপনি ইংরেজি শিখতেই পারবেন না। আমাদেরকে ইংরেজি শেখানো হতো পরীক্ষার জন্য, কথা বলার জন্য নয়। ইংরেজিকে যদি আপনার ছোটবেলার স্ন্যাক, এনএফএস, ভাইস সিটি গেমসের মত না মনে করেন, তাহলে ইংরেজি শেখাটা কঠিন হতেই পারে।

গ্রামার ও ভোকাবুলারি

আপনি ছোট থাকতে কি আগে ব্যকরণ বই পড়ে এরপর বাংলা বলা শিখেছেন নাকি বাংলা বলা শিখে এরপর ব্যকরণ বই ধরেছেন? ব্যকরণ বইগুলো ত মুখের কথাই সুন্দর করে উপস্থাপন করা বই আকারে, তাইনা? আগে সকল প্রকার গ্রামার শিখে এরপর কথা বলা শিখলে সেটা কতটা ফলপ্রসু হতে পারে সেটা চিন্তা করুন।

শেখার অনীহা

কেন শিখবেন যদি বাংলাতেই সব পেয়ে যান? বাংলায় টিউটোরিয়াল আছে, বাংলায় নাটক আছে, বাংলাতেই কেন ইংরেজির কাজটা চলবে না? এই শেখার অনীহা থাকার কারণেই আমরা দোষটা শিক্ষাব্যবস্থার উপর চাপিয়ে দিই। নিজের শেখার ইচ্ছা থাকলে যত বাধাই থাকুক, কেউ আটকাতে পারবে না।


এখন আসি ইংরেজি শেখার জন্য আপনার পরবর্তী পদক্ষেপ কি হতে পারে।

এখনই শুরু করুন

কাল ইংরেজি শিখবেন বলে রেখে দিলে আগামী ১ বছর পরও একই কথা বলবেন। কিছু শিখতে বা করতে চাইলে ভালো সময়টি হলো তখনই। পরের জন্য রেখে দিলে সেটা করার সম্ভাবনা একদমই কমে যায়। আবার কেউ এসে আপনাকে শিখিয়ে দিয়ে যাবে, সেটারও ফলাফল ভয়াবহ হতে পারে।

ভুল করুন

আপনি ভুলই যদি না করতে চান, তাহলে শিখতে পারবেন না। ইংরেজি বলতে থাকুন, পড়তে থাকুন, লিখতে থাকুন। ভুল হউক। চালিয়ে যান। ভুল হতে ধীরে ধীরেই শিখতে পারবেন।

প্রশ্ন করুন

যার মনে প্রশ্ন নেই, সে হয়তো কিছুই শিখতে পারছে না। আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে সেটা বলতে হবে, লিখতে হবে, জানাতে হবে, উত্তর খুজতে হবে। উত্তর দিবে গুগল, আপনার পরিচিত ভাই বোন, বা যে উত্তর দেবার ক্ষমতা আর ধৈর্য রাখে। :)

রাগ করা যাবে না

মানুষ ভুল করবে, মানুষ আপনার ভুল ধরবে, কিন্তু তাই বলে রাগ করা যাবে না। আসলেই কোথায় ভুল হলো সেটা দেখুন, বোঝার চেষ্টা করুন, আলোচনা করুন, জানতে চান কেন সেটা ভুল হলো। কিন্তু ভুল ধরলেই রেগে গেলে কেউ আর ভুলগুলো শুধরে দিবে না, বরং ভুল শুনলে মনে মনে হাসবে।

ভয় দূর করুন

কে আপনার ইংরেজি শুনে হাসলো, বা ভুল ধরলো, বা বিশাল কিছু হয়ে গেলো, এইসব চিন্তা না করে আপনি আপনার মত শিখে যেতে হবে।

ইংরেজিতে ভাবতে শিখুন

আপনি এখন লেখাটা পড়তে পড়তে সেটা বাংলাতেই ভাবছেন। কিন্তু ইংরেজিতে ভাবার অভ্যাস করতে হবে। চেয়ার শব্দটি দিয়ে কেদারা চিন্তা না করে চেয়ারই চিন্তা করতে হবে। I eat rice, শুনলে আপনি ভাত খান সেটা চিন্তা করতে হবে কিন্তু “আমি খাই ভাত”, চিন্তা করে সময় নষ্ট করা যাবে না। আক্ষরিক অনুবাদ না করে ভাব অনুবাদ করতে হবে। ওয়েবক্যামের বাংলা অর্থ জানেন? কম্পিউটারের বাংলা অর্থ জানেন? না জানলেও কিন্তু আপনি সেটা বুঝতে পারেন সেটা দিয়ে কি বোঝানো হচ্ছে।

ভোকাবুলারি বা শব্দভান্ডার বাড়ান

যেখানেই অজানা একটা ইংরেজি শব্দ দেখতে পাবেন, সেটাই লিখে রাখুন। পরে ডিকশনারী বা গুগলে সার্চ করে দেখুন সেটা দিয়ে কি বোঝাচ্ছে। প্রতিদিন ১-২ টা করে দেখুন। একসময় প্রচুর শব্দ বুঝতে পারবেন। মনে রাখবেন, আপনাকে ছোট বেলায় আপনার বাবা-মা কিন্তু একসাথে সকল কথা বলা শেখায় নি। আপনি একটা একটা করে শব্দ শিখেছেন, এরপর জোড়া লাগাতে শিখেছেন। কিন্তু শব্দই না জানলে বলবেন কিভাবে?

গ্রুপ বা সার্কেল তৈরি করুন বা যোগ দিন

আপনার সমমনা কাউকে খুজে বের করুন। প্রতিদিন ১০-২০ মিনিট হতে ১ ঘন্টা তাদের সাথে ইংরেজিতে লেখালেখি করুন। কথা বলুন। হয়তো অনেকেই বিরক্ত হবে, বা প্রচুর ভুল হবে, কিন্তু তাও চালিয়ে যান।

সুযোগ কাজে লাগান

একটা ইংরেজি টাইপিং টেস্ট, একটা ইংরেজি টিউটোরিয়াল, বা ইংরেজি ছবি, রাস্তায় ইংরেজি বিজ্ঞাপন, আশেপাশে ইংরেজিতে লেখা হাজারো শব্দ আপনার চোখের সামনে আসবে। হয়তো বুঝতে পারছেন না বলে এড়িয়ে যেতে চাইবেন, কিন্তু এই একই সময়ে আপনি হয়তো ইংরেজিতে একটা শব্দ শেখার বিশাল সুযোগ মিস করছেন।

প্রশ্ন হতে পারে, বাংলা মাতৃভাষা, বাংলাতেই কেন সব নয়। আমার উত্তর হলো, আপনি যদি ইংরেজি না জানেন, তাহলে বাংলা যে কত মহান ভাষা সেটা যারা ইংরেজি পারে, তাদের মাঝে ছড়িয়ে দিবেন কিভাবে?

দেখুন, আপনার ইংরেজি শেখার জন্য কিন্তু আপনিই সবচেয়ে বড় টিচার। শেখার ইচ্ছাটা আছে বলেই হয়তো পুরাটা পড়েছেন। এবার কাজে নেমে পড়ুন। একটা ছোট টাস্ক আপনাদের জন্য, এই বিশাল লেখায় কয়টা ইংরেজি শব্দ ব্যবহার করেছি খুঁজে বের করে নিচে লিখে জানান। :) আর অবশ্যই শেয়ার করুন যাতে আপনার পরিচিত কেউ ইংরেজি নিয়ে আগ্রহী হলে আপনারা একসাথে ইংরেজি চর্চা করতে পারেন।

Show your support

Clapping shows how much you appreciated Tahy Aamir’s story.